Skip to content Skip to sidebar Skip to footer

সব ধর্মই কি সমকামী বিদ্বেষী?

লেখক: ইয়াছিন আলী

যারা বলে LGBTQ দেরকে কোন ধর্মই সাপোর্ট করে না। বিশেষ করে সমকামীদের একদম সাপোর্ট করে না। তারা আসলে কয়টি ধর্ম সম্পর্কে জানেন? পৃথিবীতে এখনও ৪২০০ টি ধর্ম প্রচলিত আছে। আর এই ৪২০০ টি ধর্মের ৪২০০০ + শাখা রয়েছে। এখন বলুন তো মহাশয় আপনি কয়টি ধর্ম আর কতটি শাখা সম্পর্কে জানেন? নিজের বাপ-দাদার কাছ থেকে পাওয়া ধর্ম সম্পর্কেই কি পূর্ণাঙ্গ জানেন? হাজার হাজার বছর আগে যখন আজকের একেশ্বরবাদী ধর্মগুলো তৈরীই হয় নি তখনকার সেই প্যাগান ধর্মগুলোতে সমকামীদের জন্য আলাদা আলাদা আরাধ্য দেবতা ছিল। প্রাচীন গ্রীক পুরাণে উল্লেখিত সমকামীদের একজন আরাধ্য দেবতা হচ্ছে প্রিয়াপ্রাস। ভালবাসার দেবী ভেনাসের নাম তো কমবেশি সবাই জানেই। গ্রীক ধর্মকে হঠিয়ে জায়গা দখল করে ঈহুদী ধর্ম। সম্ভাবত প্রিয়াপ্রাস দেবতাকে নিষিদ্ধ এবং প্রিয়াপ্রাস এর পূজারীদের শাস্তি দেয়ার জন্য জর্ডান ও ঈস্রাইলের মাঝে অবস্থিত ডেড সি নিয়ে লূতের মিথলজি রচনা করেছিল ঈহুদীরা । তারপর এই মিথের উপর ভিত্তি করে হত্যাকান্ডের আইন তৈরী করল। ঈহুদী ধর্মের প্রভাব কমে গিয়ে যখন খৃষ্টান ধর্ম তৈরী হল তখন ঈহুদীদের ধর্মগ্রন্থ ওল্ড টেস্টামেন্টের সেই মিথ কিছুটা পরিবর্তন হয় খৃষ্টান ধর্মে স্থান করে নিল। তারাও এই মিথকে পূঁজি করে হত্যাকন্ডের আইন তৈরী করল। তারপর এলো ইসলাম ধর্ম। ওল্ড টেস্টামেন্টের সেই মিথ অপরিবর্তিত অবস্থায় ইসলাম ধর্মেও জায়গা করে নিল। এই মিথকে অবলম্বন করে ইসলামেও শিরচ্ছেদ, উঁচু স্থান থেকে মাথা নিচের দিকে করে ফেলে দিয়ে হত্যা, চাপা দিয়ে হত্যা, আগুনে পুড়িয়ে হত্যা, পাথর নিক্ষেপে হত্যার মতো আইন তৈরী হলো। যারা বাইবেল এবং কোরআন পড়েছেন তারা নিজেরাই এই মিলগুলো বুঝতে পারবেন। এই তিনটি ধর্মই হচ্ছে আব্রাহামিক ধর্ম এবং প্রায় একই অঞ্চলে উদ্ভাবিত। সেই সময় যারা লূতের মিথলজি তৈরী করেছিল এবং আজকের যুগেও যারা সেই মিথলজির উপরে নির্ভর করেন তারা হয়ত জানেই না ডেড সি এর মতো অনেক হৃদ পৃথিবীতে আছে। যেগুলোতে লবণাক্ততার পরিমাণ বেশি হওয়ার করণে সামান্য কিছু ব্যাকটেরিয়া ছাড়া কোন জলজ জীব বাঁচে না। পানির ঘনত্ব বেশি হওয়ার কারণে কোন বস্তু ডুবে যায় না। আর ডেড সি মোটেও কোন অভিশপ্ত এলাকা নয়। বরং স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপরকারী হৃদের এই এলাকা। ধর্মগ্রন্থগুলো লূতের সময়কালের যে হিসেব দেয় বিজ্ঞান মতে তার থেকে কয়েক মিলিয়ন বছর আগেই ডেড সি তৈরী হয়েছিল। তাই এসব মিথলজির বৈজ্ঞানিক কোন ভিত্তিই নাই।
এদিকে ভারতবর্ষে যে ধর্মগুলোর জন্ম হয় তার মধ্যে সনাতন ধর্মের মনুসংহিতায় সমকামীদের শাস্তির কথা বলা হয়েছে। মনুসংহিতা অনুযায়ী সমকামী পুরুষদের শাস্তি হচ্ছে, কাপড় পরিধান করেই জলে ঢুব দিতে হবে, গাধার পিঠে চড়ে ঘোরানো হবে, মাথা ন্যাড়া করে দিতে হবে অথবা জাতিচ্যুত করতে হবে। নারী সমকামীদের শাস্তি হচ্ছে হাতের একটি আঙ্গুল কেটে দিতে হবে।মনুসংহিতায় এই বিধান থাকলেও অনেক পৌরাণিক কাহিনী সমকামী,রুপান্তরকামীদের সমর্থন দিয়েছে। আর সনাতন ধর্ম একটি নির্দিষ্ট ধর্মগ্রন্থের উপরে নির্ভরশীল না হওয়ার কারণে ভারতবর্ষের ইতিহাসে এই বিধান ছিল অনেকটা অকেজো। এর প্রমাণ হচ্ছে বাৎসায়ন কর্তৃক রচিত কামসূত্র গ্রন্থ। প্রাচীন এই পুস্তকে দুজন পুরুষের সম্পর্কের উল্লেখ রয়েছে। যাকে ঐপরেস্টিক সম্পর্ক হিসেবে উল্লেখ করেছে।
বৌদ্ধ,জৈন,শিখ,তাওবাদ ধর্মের ধর্মগ্রন্থগুলো এসব নিয়ে হ্যা,না কিছুই বলে নি। তাই যারা শুধু মাত্র তিন-চারটি ধর্মের উদাহরণ টেনে বাকি ধর্মগুলোকে ডিফেন্স করতে চায় তারা এক প্রকার জ্ঞানপাপী। হ্যা এটা বলতে পারেন ইসলাম, হিন্দু (সব মতে নয়), খৃষ্টান, ঈহুদী ধর্মে সমলিঙ্গের সম্পর্ক অপরাধ। কিন্তু মনে রাখা উচিৎ সব ধর্মে নয়।
What's your reaction?
0Smile0Angry0LOL0Sad0Love

Add Comment